You are currently viewing ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে ফ্রিলান্সিং শুরু করবো?
ফ্রিল্যান্সিং কি

২০২৩ সালে এসে ফ্রিল্যান্সিং বোঝে না এমন ব্যক্তি পাওয়া দুষ্কর। ছোট থেকে বড় সবাই এই শব্দটির সাথে পরিচিত। অনলাইনে যতগুলো আয় করার উৎস বিদ্যমান তাদের মধ্যে ফ্রিল্যান্সিং অন্যতম। সাম্প্রতিক সময়ে এর প্রচার এবং প্রসারের কারণে বিশ্বব্যাপী ফ্রিল্যান্সিং এর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে। চলুন ফ্রিল্যান্সিং কি, কীভাবে কাজ করে এবং কীভাবে শুরু করবো সে সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই। 

ফ্রিল্যান্সিং কি?

ফ্রিল্যান্সিং হলো একটি মুক্ত পেশা। সাধারণ চাকরি আর ফ্রিল্যান্সিং এর মধ্যকার প্রধান পার্থক্য হলো ডিউটি করার সময়। অর্থাৎ কোন চাকরি করতে গেলে সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত ডিউটি করতে হয়। ফ্রিল্যান্সিং পেশায় সচরাচর কোন টাইম লিমিট থাকে না। সেখানে নিজের পছন্দমতো সময়ে কাজ করার স্বাধীনতা থাকে।

ফ্রিল্যান্সিং শব্দটিকে আরও সহজভাবে বর্ণনা করতে অনলাইন ইনকাম টার্ম ব্যবহার করা হয়। সাধারণত অনলাইনে যে যে কাজ পাওয়া যায় সেগুলো করে দিয়ে যে অর্থ পাওয়া যায় তাকে ফ্রিল্যান্সিং বলে। অর্থাৎ কোন নির্দিষ্ট কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের হয়ে না কাজ করে চুক্তিভিত্তিক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ করা কে ফ্রিল্যান্সিং বা অনলাইনে আয় করা বলে।

ফ্রিল্যান্সিং ধারণাটি প্রাচীনকাল থেকেই সমাজে প্রচলিত আছে। প্রযুক্তির অভাবনীয় বিকাশের মাধ্যমে এই শব্দটি একটি আলাদা আত্মমর্যাদা পেয়েছে। যাইহোক, ফ্রিল্যান্সিং কি সে সম্পর্কে আমাদের সবার কৌতূহল আছে কারণ মেইনস্ট্রিম মিডিয়াগুলো প্রতিনিয়ত অনলাইন ইনকাম সম্পর্কে নিউজ কভার করছে।

এতে সমাজে একটি পজিটিভ পরিবেশ বিরাজ করছে। চুক্তিভিত্তিক কাজ করার কারণে একমাত্র এই পেশায় নিজের বস নিজেই হওয়া যায়। অনলাইন কাজের উপর দক্ষতা অর্জন করে তা ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে ক্লায়েন্টের কাছে বিক্রি করে ইনকাম করা যায়। মোটকথা, ফ্রিল্যান্সিং পেশার মাধ্যমে দেশি-বিদেশি অনেক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করার সুযোগ পাওয়া যায় যা দক্ষতা বৃদ্ধি করতে ও নতুন কিছু শিখতে সাহায্য করে।

ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ কি?

ফ্রিল্যান্সিং হলো একটি পেশা যাকে অনলাইন ইনকাম হিসেবেও অনেকে চেনে। তো যারা ফ্রিল্যান্সিং করে তাদের ফ্রিল্যান্সার বলা হয়। আজকাল ফেসবুক এবং ইউটিউবের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সার শব্দটি আমাদার সবার কাছেই সুপরিচিত। 

দুনিয়া ধীরে ধীরে অনলাইন ভিত্তিক হয়ে যাচ্ছে। দেশে বা বিদেশে আজকাল প্রশাসনিক বা বাণিজ্যিক কাজ গুলো অনলাইনে কনভার্ট হচ্ছে। এতে যেমন কাজের গতি বৃদ্ধি পাচ্ছে তেমনি সময় বাঁচানো যাচ্ছে। অনলাইনে যে সকল কাজ পাওয়া যায় সেগুলো গতানুগতিক কাজ থেকে একটু ভিন্ন। 

এই কারণে সেগুলো করতে হলে আমাদের নির্দিষ্ট বিষয়ের উপরে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হয়। বর্তমানে অনলাইনে পাওয়া যায় এমন কাজের মধ্যে ওয়েব ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক্স, ভিডিও এডিটিং, প্রোগ্রামিং, অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট, আর্টিকেল রাইটিং, মার্কেটিং ইত্যাদি অন্যতম। 

একজন সাধারণ ফ্রিল্যান্সারের কাজ শেখা থেকে শুরু করে কাজ পাওয়া ও ডেলিভারি দিয়ে পেমেন্ট রিসিভ করার যে প্রক্রিয়া সংঘটিত হয় সেটাই ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ।

কিভাবে ফ্রিলান্সিং শুরু করবো?

ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার জন্য আপনাকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ধাপ অনুসরণ করতে হবে। চলুন ধাপগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই। 

পরিকল্পনাঃ ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরে অনেক ধরনের কাজ পাওয়া যায়। উক্ত কাজ গুলো সম্পর্কে আপনার অভিজ্ঞতা না থাকলে সেগুলো করতে পারবেন না। এই কারণে ফ্রিল্যান্সিং পেশায় আসার আগে আপনাকে ঠিক করে নিতে হবে আপনি কি আসলেই নিজেকে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে দেখতে চান?

যাইহোক, বুদ্ধিমানেরা কোন কাজ শুরু করার আগে পরিকল্পনা করে নেয়। ঠিক তেমনি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার আগে আমাদের একটি বুলেট-প্রুফ পরিকল্পনা সাজিয়ে নিতে হবে। পরিকল্পনা সাজানোর সময় অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে যে অনলাইনে সহজ এবং কঠিন উভয় কাজ পাওয়া যায়। এখানে কোন কাজ এক ঘণ্টায় শেষ করা যায় আবার কোন কাজ করতে ১৫ দিন লাগে।

অনলাইনের প্রতিটি কাজের মধ্যে আপনাকে এমন কাজ নির্বাচন করতে হবে যা আগামী ১০ বা ২০ বছর পর্যন্ত থাকবে। কারণ শেখার পর যদি সেই কাজ বন্ধ হয়ে যায় তাহলে সেখানে দেওয়া সময় সম্পূর্ণটাই নষ্ট হয়ে যাবে। মোটকথা ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার আগে আপনি কি কি শিখবেন, কোথায় থেকে শিখবেন এবং কত সময়ের মধ্যে শিখবেন তা নির্ধারণ করে এগোতে হবে। 

কাজ শেখার আউটলাইন তৈরিঃ আপনার পছন্দের টপিক নির্বাচন করার জন্য আপনাকে একটু পরিশ্রম করতে হবে। অনলাইনে পাওয়া যায় এমন প্রধান প্রধান কাজগুলো সম্পর্কে সার্চ করে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। এতে আপনি যে বিষয় বোঝেন সেই বিষয় নির্বাচন করতে সহজ হবে। 

স্মার্ট ক্যারিয়ার তৈরি করা যাবে দেখে লোভে পড়ে কোন টপিক নির্বাচন করা যাবে না। কারণ উক্ত বিষয় শিখতে গেলে তখন মাঝপথে ইন্টারেস্ট কমে যাবে এবং শেখা অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। যাইহোক, আপনার পছন্দের বিষয় নির্বাচন করা হয়ে গেলে একটি প্রপার গাইডলাইন তৈরি করে নিতে হবে। 

কাজ শেখার জন্য আউটলাইন তৈরি করলে সেই অনুযায়ী কাজ শেখা অনেক সহজ আর দ্রুত হয়। গাইডলাইন থাকার কারণে রুটিন থেকে কখনো অন্য বিষয়ে সময় নষ্ট হয় না। এতে খুব অল্প সময়ের মধ্যে শেখা যায়। 

প্রোজেক্ট তৈরিঃ পর্যাপ্ত সময় নিয়ে কাজ শেখার পড়ে কাজ হলো কিছু বাস্তবধর্মী প্রোজেক্ট তৈরি করা। অর্থাৎ এতদিন ধরে আপনি যে বিষয়ে শিখলেন সেই বিষয়ের উপর নির্ভর করে কিছু কঠিন প্রোজেক্ট তৈরি করতে হবে। এই প্রজেক্টগুলো একাধারে আপনার স্কিল বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে এবং আপনার পোর্টফলিও স্ট্রং করবে। 

প্রোজেক্ট তৈরি করার জন্য আপনি গুগল থেকে আইডিয়া নিতে পারেন অথবা কোন ভার্সিটি প্রোজেক্ট করতে পারেন। অন্যদিকে, কাজের গতি বৃদ্ধি করার জন্য ফেসবুক থেকে আপনার শেখা বিষয়ের উপর এক্সপার্ট এমন কারো সাথে ফ্রিতে কাজ করুন। এতে কাজের অভিজ্ঞতা বাড়বে এবং সরাসরি ক্লায়েন্টের সাথে কাজ করার কনফিডেন্স পাবেন। সমস্যা সমাধানের জন্য প্রপার রিসার্চ করার বিষয়ে রিয়েল লাইফ এক্সপেরিয়েন্স অনেক গুরুত্বপূর্ণ। 

পোর্টফোলিও তৈরিঃ কাজ শেখা শেষ করে যখন প্রোজেক্ট করা হয় তখন পোর্টফোলিও এর প্রয়োজন পরে। পোর্টফোলিও হলো আপনার অভিজ্ঞতার প্রমাণ। আপনার পোর্টফোলিও তে যত কাজের প্রমাণ এবং অভিজ্ঞতা থাকবে তত তাড়াতাড়ি অনলাইনে কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়বে। 

অল্পকিছু অর্থ ব্যয় করে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে তা পোর্টফোলিও হিসেবে রাখলে অন্যান্য ফ্রিল্যান্সার থেকে নিজেকে এগিয়ে রাখতে পারবেন। 

মার্কেটপ্লেসে অ্যাকাউন্ট তৈরিঃ উপরের সকল কাজ ঠিকভাবে করার পর আপনি এখন অনলাইনে ইনকাম করার জন্য রেডি। শুরুতে কাজ পাওয়ার জন্য ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস যেমন ফাইবার বা আপওরকে অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। 

এগুলোর পাশাপাশি লিংকডইন সহ অন্যান্য প্রফেশনাল ওয়েবসাইটে নিজের প্রোফাইল তৈরি করে অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে হবে। বিশেষ করে মার্কেটপ্লেসে সব সময় অ্যাক্টিভ থেকে কাজের জন্য অ্যাপ্লাই করতে হবে। বর্তমানে ফাইবার নতুন ফ্রিল্যান্সারদের জন্য অনেক সহজে ক্লাইন্ট খোঁজার সুবিধা দিয়েছে। এখানে গিগ খুলে নিজের কাজের পারদর্শিতা ও অভিজ্ঞতা শেয়ার করলে ক্লাইন্ট নিজেই কাজের অফার দেয়। 

পেমেন্ট সিস্টেমঃ পেমেন্ট অ্যাকাউন্ট সেটআপ করা যতটা সহজ মনে করা হয় আসলেই ততটা সহজ। বাংলাদেশে পেপাল না থাকায় সকল ফ্রিল্যান্সারগুলো পেওনিয়ার, ওয়াইজ, ডিরেক্ট ব্যাংক ট্র্যান্সফার মেথড ব্যবহার করে। 

মার্কেটপ্লেসে যখন আপনি কাজ সাবমিট করবেন তার বিনিময়ে যে টাকা পাবেন তা উল্লিখিত পেমেন্ট মেথডের মাধ্যমে নিজের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে নিয়ে আসতে হবে। মোটকথা অনলাইন থেকে আপনি যা যা ইনকাম করবেন তা পেমেন্ট মেথড ব্যবহার করে দেশে নিয়ে আসতে হবে। 

এ কারণে সর্বশেষ ধাপ হিসেবে পেমেন্ট নেওয়া যাবে এমন ওয়েবসাইট বা সার্ভিসে অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। 

উপরে উল্লিখিত ধাপ গুলো সঠিকভাবে অনুসরণ করলে পরিশ্রমের মাধ্যমে সফলভাবে ফ্রিল্যান্সিং পেশায় প্রবেশ করা যাবে। অন্যথায় ফ্রিল্যান্সিং এ ক্যারিয়ার গড়তে গিয়ে উল্টো নষ্ট হয়ে যাবে। 

Leave a Reply