ডোমেইন কি?

ডোমেইন হল একটি নাম যা কোন ওয়েবসাইট এর ঠিকানা হিসেবে ব্যবহার হয়ে থাকে। ডোমেইন নেম এর মাধ্যমে কেউ নির্দিষ্ট কোন ওয়েবসাইট সহজেই খুঁজে বের করতে পারে। ডোমেইন নেম গুলো সব সময় ইউনিক হয়ে থাকে অর্থাৎ একই নামে কখনো একাধিক ডোমেইন হতে পারেনা। কেউ একবার একটি ডোমেইন নেম রেজিস্ট্রেশন করলে সেই একই নামে অন্য কেউ আর ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে না।

ডোমেইন এর ইতিহাস

সর্ব প্রথম ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করা হয় ১৯৮৫ সালের ১৫ মার্চ । এরপর ১৯৯২ পর্যন্ত ১৫০০০ এর কিছু কম ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন হয়। ২০১৫ সালের প্রথম দিকে ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন এর সংখ্যা দাঁড়ায় ২৯৪ মিলিয়ন। বর্তমানে বিশ্ব জুড়ে ২৮০ টির বেশি ডোমেইন এক্সটেনশন প্রচলিত আছে যা বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এর মধ্যে কিছু ডোমেইন আছে যা সকলের জন্য উন্মুক্ত। সকলের জন্য উন্মুক্ত ডোমেইন গুলো যে কেউ যেকোনো সময় কিনতে পারে তবে CC TLD বা দেশ ভিত্তিক ডোমেইন এক্সটেনশন গুলো সবাই নিতে পারে না শুধু সেই দেশ বসবাসরত ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্য কেউ নিতে পারে না।

টপ লেভেল ডোমেইন

টপ লেভেল ডোমেইন বা TLD বলতে ডোমেইন নেম এর শেষ সেগমেন্ট বা (.) চিহ্ন এর পরের অংশকে বোঝাই। TLD সাধারণত দুই ধরণের হয়ে থাকে সেগুলো হল generic TLD এবং country-specific TLD।

কিছু TLD এর উদাহরন হল
.com
.org
.net
.gov
.biz
.edu

ডোমেইন এর ব্যবহার

সাধারণত যখন কোন কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠান এর জন্য কোন ওয়েবসাইট বা কোম্পানির অনলাইন প্রোফাইল তৈরি করার প্রয়োজন পরে বা অন্য কোনো কাজে কোনো ওয়েবসাইট এর প্রয়োজন হলে তখন সেই ওয়েবসাইট এর জন্য একটি ঠিকানার প্রয়োজন পরে যা ব্রাউজারে টাইপ করে সার্চ করলে ওয়েবসাইটে থাকা সকল তথ্য গুলো দেখা যাবে। কোন ডোমেইনই হলো সেই অ্যাড্রেস বা ঠিকানা।

তবে কম্পিউটার আবার ডোমেইন নেম বোঝেনা কম্পিউটার বোঝে আইপি অ্যাড্রেস। আইপি অ্যাড্রেস হলো একটি ইউনিক আইডেন্টিফায়ার যা মূলত কিছু সংখ্যা। মানুষের পক্ষে এই সংখ্যাগুলো মনে রাখা খুবই কঠিন হয়ে পড়ে। তাই আইপি অ্যাড্রেস এর বিপরিতে ডোমেইন নেম ব্যবহার করা হয়। ডোমেইন নেম সাধারণত কোনো আইপি অ্যাড্রেস এর বিপরিতে সহজে মনে রাখার জন্য ব্যবহার করা হয়। মানুষের পক্ষে সংখ্যা অর্থাৎ আইপি অ্যাড্রেস মনে রাখা কঠিন হলেও ডোমেইন নেম সহজে মনে রাখা সম্ভব। মূলত এজন্যই ডোমেইন নেম ব্যবহার করা হয়।

ডোমেইন এর সাথে আরও কিছু বিষয় এর সংশ্লিষ্টটা রয়েছে। ডোমেইন নেম শুধুমাত্র ঠিকানা হিসেবে ব্যবহৃত হয় আর ওয়েবসাইটের সকল তথ্য স্টোর করা থাকে হোস্টিং-এ। একটি ডোমেইন নেম ব্রাউজারে লিখে সার্চ করলে হোস্টিং থেকে সেই ওয়েবসাইটের সকল তথ্য আপনার সামনে চলে আসে আর এই কাজটি হয়ে ডিএনএস এ মাধ্যমে। ডোমেইন হোস্টিং এর সাথে কানেক্ট করা হয় নেমসার্ভার ও ডিএনএস রেকর্ডের মাধ্যমে। এখান থেকে আরও বিস্তারিত দেখতে পারেন নেম সার্ভার এবং ডিএনএস রেকর্ড কি?

ডোমেইন এর মালিকানা কত দিন এর জন্য থাকে?

সাধারণত একবারে ১ থেকে ১০ বছর এর জন্য কোন ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করে রাখা যায় এবং প্রতিবছর তা রিনিউ করে এর মেয়াদ বাড়ানো যায়। ডোমেইন সর্বনিম্ন এক বছরের জন্য রেজিস্ট্রেশন করা যায় আর যেদিন রেজিস্ট্রেশন করা হবে সেদিন থেকে এক বছর পর্যন্ত ডোমেইন অ্যাকটিভ থাকবে। ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করার পর এই এক বছরের মধ্যে যেদিনই রিনিউ করেন না কেন রিনিউ করার সাথে সাথে এক্সপায়ারি ডেট থেকে আবার এক বছরের জন্য রিনিউ হবে। স্বাভাবিক ভাবে কোন ডোমেইন যদি এক বছর এর জন্য রেজিস্ট্রেশন করা হয় তাহলে ১ বছর এর মধ্যে ডোমেইন এর মেয়াদ শেষ হবার পূর্বেই তা রিনিউ করতে হবে যাতে ডোমেইন এক্সপায়ার হয়ে ওয়েবসাইট ডাউন না হয়ে যায়। এমন ভাবে প্রতিবছর অথবা একবারে ১ থেকে ১০ বছর এর জন্য রিনিউ করে রাখা যাবে। এক্সপায়ার হওয়ার পর যদি রিনিউ না করা হয় তখন ডোমেইনটি কয়েকটি পিরিয়ড পার হয়ে আবার নতুন করে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য রিলিজ হয়। সে সময় যেকোনো ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠান ডোমেইনটি আবারও রেজিস্ট্রেশন করার সুযোগ পেয়ে থাকে।

ডোমেইন এর পিরিয়ড সমূহঃ

কোন ডোমেইন এর একটিভ পিরিয়ড ক্রেতার ক্রয়কৃত মেয়াদ অনুযায়ী ১ থেকে ১০ বছর হতে পারে। ক্রেতা যদি কোন ডোমেইন ১ বছর এর জন্য ক্রয় করে থাকে এবং ১ বছর পর যদি সে ডোমেইন টি রিনিউ না করে তবে ডোমেইন টি এক্সপায়ার পিরিয়ডে আসে। এক্সপায়ার পিরিয়ডে একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত স্বাভাবিক রিনিউয়াল ফি দিয়েই ডোমেইন রিনিউ করা যায় এই সময়টাকে Grace Period বলে। এই পিরিয়ড এর মেয়াদ সাধারণত ২৯ দিন পর্যন্ত হয়ে থাকে।

এরপরের পিরিয়ডকে Redemption Grace Period বলে। এই পিরিয়ডে কোন ডোমেইন রিনিউ করতে চাইলে ডোমেইন রিনিউয়াল ফি এর সাথে রিডেম্পশন ফি দিতে হয়। এই পিরিয়ড এ কোন ডোমেইন সাধারণত ৩০ দিন পর্যন্ত থাকে। Redemption Grace Period- এ ডোমেইন রিনিউ করা অনেক ব্যয়বহুল হয়ে যায়।

এরপর ডোমেইন আর রিনিউ করা সম্ভব হয় না সাধারণত ৫ দিন সময় এর মধ্যে ডোমেইন টি ডিলিট হয়ে যায় এবং তা পুনরায় রিলিজ হয়ে যায় নতুন করে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn