আপনি কি কখনও লক্ষ্য করেছেন, কোন কোন ওয়েবসাইট প্রথমবার ভিজিট করতে দ্বিতীয়বার ভিজিট করা অপেক্ষা সময় একটু বেশিই প্রয়োজন হয় । হতে পারে পার্থক্যটি আপনি কখনও বুঝতে পেরেছেন বা বুঝতে পারেননি তবে এই কিছু সময়ের পার্থক্যটি অনেক সময় অনেক বড় পার্থক্য তৈরি করে।

যেমন অনেক ভিজিটর আছেন যাদের প্রায় সময় একটি ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে হয় তাদের জন্য বার বার বেশি সময় ধরে কোন ওয়েবসাইট লোডিং হওয়া অনেক সময় বিরক্তির কারন হতে পারে। তাই কোন ওয়েবসাইট এর  লোডিং time কমাতে ক্যাশিং সিস্টেম এর ব্যাবহার করা হয় থাকে।

ক্যাশ কি

উদাহরন হিসেবে বলা যায়, এই মুহূর্তে আপনি IT Nut Hosting এর ওয়েবসাইট ভিজিট করছেন, এখন আপনার ব্রাউজার এই ওয়েবসাইটের একটি কপি ডাউনলোড করে আপনার হার্ড ড্রাইভে Store করে রাখছে। পরবর্তীতে আপনি পুনরায় যখন এই একই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন তখন ডাউনলোড করা ওয়েবসাইট এর কপি থেকে কিছু ডাটা রিস্টোর হয়ে ওয়েবসাইটটিকে পূর্বের তুলনায় ফাস্ট লোড করবে। আর ওয়েবসাইটের এই ডাটা ব্রাউজারে স্টোর এবং রিস্টোরই হল ক্যাশ ক্যাশিং বা ক্যাশ।

ক্যাশ কিভাবে কাজ করে

ক্যাশ যেকোনো প্রয়োজনে ঠিক একই ভাবে কাজ করে। আর তা হোল কিছু ডাটা স্টোর করে রেখে তাকে পুনরায় রিস্টোর করা ফাস্ট লোডিং করা বা লোডিং এর সময় কে কমিয়ে আনা। এখন এটি হতে পারে কোন সার্ভার থেকে হয় যেমন আমাদের ওয়েবসাইটে ব্যবহারিত CDN অথবা আমাদের Browser এ ব্যবহারিত ক্যাশ Engine ইত্যাদি। ক্যাশ সকল পর্যায়ে একই ভাবে কাজ করে। আপনি ক্যাশ ডাটাকে কন্ট্রোল করতে পারেন তবে এর কাজের ধরন একই থাকবে।

ক্যাশ ব্যবহারের উপকারিতা

ক্যাশ যেহেতু অনলাইন সার্ভিসের একটি অংশ, এটি মূলত অনলাইন বা ইন্টারনেট এর সাথে মিলিত ভাবে কাজ করে। ক্যাশ ইন্টারনেট ব্যবহার এর পারফর্মেন্স কে আরো উন্নত করে। তাই এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতা লক্ষণীয়। যেমন,

  • ক্যাশ ব্যবহার এর মাধ্যমে যেকোনো ওয়েবসাইটের লোডিং সময় কমানো যায়।
  • ভিজিটর সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য সঞ্চয় করা যায়।
  • ক্যাশ ব্যাবহারের ফলে ইন্টারনেট বা হোস্টিং এর ব্যান্ডউইথ সাশ্রয় হয়।
  • ক্যাশ ব্যাবহার করে ইউজারের সকল এক্টিভিটি  ট্র্যাক করা যায়। এতে পরবর্তীতে ইউজারের কাজ আরো সহজতর করা সম্ভব হয়, ইত্যাদি।

ক্যাশ ব্যবহারের অপকারিতা

প্রয়োজনীয় সকল বিষয় গুলোর উপকারি দিক গুলোর পাশাপাশি কিছু অপকারিতা ও  রয়েছে । ক্যাশ ডাটা ব্যবহারে কিছু লক্ষণীয় সমস্যা আপনি ফেস করতে পারেন। যেমন,

  • ওয়েবসাইটের লাইভ আপডেট না পাওয়া। কিছু কিছু সময় ওয়েবসাইট ক্যাশ ডাটা থেকে ব্রাউজ হবার কারনে আপডেট করা বিষয় গুলো ইনস্ট্যান্ট ওয়েবসাইট এ দেখা যায় না।
  • হার্ড ড্রাইভ এর ফ্রি স্পেস পূর্ণ হয়ে যাওয়া।
  • ক্যাশ ব্যবহার করে ইউজার এর এক্টিভিটি ট্র্যাক করা যায় ফলে এটি কিছু কিছু সময় ইউজার এর বিপদ বা থ্রেট এর কারন হতে পারে।

(নোটঃ আপনি চাইলে ব্রাউজার অথবা CDN থেকে ক্যাশ ডাটা রিমুভ অথবা ক্লিয়ার করতে পারেন।)

সর্বশেষ ক্যাশ ডাটা ব্যাবহারে যেমন সুবিধা আছে ঠিক তেমনি অসুবিধাও আছে। তবে সব দিক বিবেচনা করলে ক্যাশ ডাটা আমাদের অনলাইন কাজের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। যা আমাদের প্রতিনিয়ত কাজ সমুহকে আরো বেশি সহজ করে।

কিভাবে ক্যাশ ডাটা রিমোভ করতে হয় তা জানতে আপনি এই গাইড লাইন টি ফলো করতে পারেন।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn